Chattogram24

Edit Template
Search
Close this search box.
শনিবার, ১৩ই এপ্রিল ২০২৪

পালংখালীতে নিহত লুলু আল মরজানের কন্যা রাহমিনা মমতাজের সাংবাদিক সম্মেলন

Author picture
স্টাফ রিপোর্টার

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি:

উখিয়ার পশ্চিম পালংখালীর নিহত লুলু আল মরজানের কন্যা রাহমিনা মমতাজ প্রিয়া নিরাপত্তা ও মায়ের হত্যার ন্যায় বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে উখিয়া অনলাইন প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলন হয়।

সংবাদ সম্মেলনে রাহমিনা মমতাজ প্রিয়া বক্তব্য দেন। তিনি বলেন- চলতি বছরের ৪ ই মে আমার মাকে নিশংসভাবে খুন করে খুনি ইউসুফ, শামীম, সেলিম এবং তাদের পিতা জাহাঙ্গীর। ঐ ঘটনায় আমার এস.এস.সি পরীক্ষার্থী বড় বোন গুরুতর আহত হয়ে বর্তমানে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হসপিটালে চিকিৎসাধীন আছে। এর আগে ১৯৯৯ সালের ১৮ নভেম্বর ইউসুফের পিতা, চাচা, ফুফু, এবং ফুফা মিলে আমার নানাকেও একইভাবে হত্যা করে।

আমার মায়ের খুনের ঘটনার পর গনমাধ্যমে বিষয়টি প্রকাশ হলে পুলিশ প্রশাসন খুনি জাহাঙ্গীর এবং সেলিমকে গ্রেফতার করে। কিন্তু মামলার তদন্ত কার্যক্রমে ধীরগতি এবং প্রধান আসামী ইউছুপসহ অন্যান্য আসামীরা গ্রেফতার না হওয়ায় খুনির পরিবারের (ইউসুফের মা, বউ, বোন, বোন জামাতা আরসা সদস্য আনোয়ার, শামীমের বউ) প্রতি নিয়ত হুমকি ধামকিতে আমি এবং আমার মেজবোন বাড়িতে থাকতে পারতেছিনা। তারা আমার মামা- খালা এবং খালাত ভাই বোনদের বিভিন্ন মিথ্যে অজুহাতে হয়রানি করে আসছে। তারা প্রতি নিয়ত বিভিন্ন মাধ্যমে পুনরায় হত্যা করার হুমকি দিচ্ছে।

এদিকে দিন যতই অতিবাহিত হচ্ছে মামলা ততই পুরনো হচ্ছে। প্রশাসন ও সমাজ কর্মীরা ধীরে ধীরে খুনিদের পক্ষ নিচ্ছে বলে মনে করছি আমি। আমার মায়ের খুনির অন্যতম সহযোগীরাও প্রকাশ্য দিবালোকে বসবাস করছে।

যে জায়গার কারনে আমার মাকে হত্যা করা হয়েছে সে জায়গায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) কর্তৃক নিষেধাজ্ঞা ছিল। আর সেই নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে তারা বসবাস করছে বর্তমানে। আমি সহকারী কমিশনার (ভূমি) এবং পুলিশ প্রশাসনকে ফোনে জানালে কেউ বিষয়টি গুরুত্ব দিচ্ছেনা। রাষ্ট্রের কারো কাছ থেকে আমি কোনো প্রকার নুন্যতম সহযোগীতা পাচ্ছিনা। এই রাষ্ট্রের আমার পাশে থাকার জন্য আমি কাউকে পায়নি।

আমি একটি বাড়িতে একা একজন মানুষ খুনিদের ভয়ে থাকতে পারছিনা। আজকে একজনের বাড়ি, কালকে আরেকজনের বাড়িতে থাকতে থাকতে আমার জীবন দুর্বিসহ হয়ে উঠেছে। একদিকে মায়ের লাশ অন্যদিকে মারাত্মক আহত বোনের চিৎকার আমি আর সহ্য করতে পারছিনা। সন্ধ্যা হলে সকল মানুষ আপন আপন ঠিকানায় ফিরে। কিন্তু সন্ধ্যা নামার সাথে সাথে আমার অসহায়ত্ব ক্রমশঃ ভয়াবহ হয়ে উঠে। এতবড় পৃথিবীতে আমার এক টুকরো নিরাপদ জায়গা নাই। আমি আমার মায়ের খুনি ও সহযোগীদের গ্রেফতার ও সুষ্ঠু বিচার চাই। আমি এই পৃথিবীতে সুষ্টু ও নিরাপদভাবে বাঁচতে চাই। আমার মায়ের আত্মার শান্তি কামনায় আপনাদের দোয়া চাই।

উল্লেখ্য, খুনি ইউসুফ অর্ধ ডজন ডাকাতি মামলা, অস্ত্র মামলা, প্রশাসনের অস্ত্র ছিনতায় মামলা এবং রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নবি হোছন গ্রুফের সক্রিয় সদস্য। ##