Chattogram24

Edit Template
Search
Close this search box.
শনিবার, ২রা মার্চ ২০২৪

প্রচারে সরব কক্সবাজার-৪ আসনের দুই হেভিওয়েট প্রার্থী

Author picture
স্টাফ রিপোর্টার

কনক বড়ুয়া, নির্বাহী সম্পাদক:

আগামী ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। হাতে আর মাত্র ১১ দিন বাকি আছে। গত বৃহস্পতিবার ঈগল প্রতীক নিয়ে নির্বাচনী মাঠে ফিরেছেন আলহাজ্ব নুরুল বশর। এর আগে থেকে মাঠে ছিল আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শাহীন আক্তার।

কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনে প্রার্থীরা প্রতীক পাওয়ার পর জমে উঠেছে নির্বাচনী মাঠ। ভোট প্রদানের তারিখ যতই ঘনিয়ে আসছে ততই নির্বাচনী মাঠজুড়ে চলছে গরম হাওয়া।

চূড়ান্ত লড়াইয়ে নিজেদের স্থান দখলে সরব প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন হেভিওয়েট দুই সদস্য ও তাদের সমর্থকরা। এই হেভিওয়েট দুই সদস্য ও তাদের সমর্থকরা নেমে পড়েছেন নির্বাচনি প্রচারে। সভা-মিছিল করে পাড়া-মহল্লা চষে বেড়াচ্ছেন তারা। সাধারণ ভোটরদের ধারণা, এ দুই প্রার্থীর মধ্যে এবার হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। ভোটকে সামনে রেখে এলাকার প্রধান প্রধান সড়ক ও পাড়া-মহল্লায় প্রার্থীদের পোস্টারে ছেয়ে গেছে। মাইকিং, গণসংযোগে মুখরিত পুরো উখিয়া-টেকনাফ।

কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনে সংসদ সদস্য পদে দুই হেভিওয়েট প্রার্থীর মধ্যে লড়াইয়ের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। তাই এই আসনে বিভিন্ন এলাকায় বইছে নির্বাচনী হাওয়া। আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সঙ্গে লড়াইয়ে কে শেষ হাসি হাসবেন, তা শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা।

এই আসনে আগের ৬ জন প্রার্থীর সাথে সংযুক্ত হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. নুরুল বশর (ঈগল)। আগের ৬ জনের মধ্যে ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য শাহীন আক্তার (নৌকা), জাতীয় পার্টির নুরুল আমিন চৌধুরী ভুট্টো (লাঙ্গল), ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) ফরিদুল আলম (আম), তৃণমূল বিএনপির মুজিবুল হক মুজিব (সোনালী আঁশ), ইসলামী ঐক্যজোটের মোহাম্মদ ওসমান গনি চৌধুরী (মিনার), বাংলাদেশ কংগ্রেসের মোহাম্মদ ইসমাইল (ডাব)।

৭ জন প্রার্থীর মধ্যে ২জন হেভিওয়েট প্রার্থী। তারা হলেন- নৌকার মনোনীত সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী একবারের সংসদ সদস্য সাবেক এমপি আব্দুর রহমান বদির স্ত্রী শাহীন আক্তার অপরজন স্বতন্ত্র পদে ঈগল প্রতীকের সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব নুরুল বশর।

লডাই হবে হাড্ডাহাড্ডি। কারন মো. নুরুল বশরের রাজনৈতিক পরিচিতি বেশ সমৃদ্ধ। তিনি টেকনাফ উপজেলা ছাত্র লীগের সাবেক সভাপতি ও টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। বর্তমানে তিনি টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন। তার ছোট ভাই উপজেলা যুব লীগের সভাপতি নুরুল আলম বর্তমানে টেকনাফ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান। তিনি ইতিপূর্বে টেকনাফ সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। তাছাড়াও বদির পিতা এজাহার মিয়া ও নুরুল বশরের পিতা মো: শফি তারা ২ যুগ যুগ ধরে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ বা প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন। এদিকে টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগসহ মূল অঙ্গসংগঠন গুলো স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. নুরুল বশরের পক্ষে কাজ করছে।

অন্যদিকে কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনটিতে গেলবার নৌকার টিকেটে এমপি হয়েছেন আবদুর রহমান বদির সহধর্মিনী গৃহিণী শাহীন আক্তার। যিনি এমপি হওয়ার আগে কোনো ধরনের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্তই ছিল না। কিন্তু নৌকা প্রতীকের মনোনীত প্রার্থী শাহীন চৌধুরীর পক্ষে আবদুর রহমান বদির দৃঢ়চেতা মনোবল, বহুমাত্রিক পদচারণা ও রাজনৈতিক কারিশমার কারণে জেলা বিএনপির সভাপতি ও চার চার নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য শাহজাহান চৌধুরীর মতো হেভিওয়েট প্রার্থীকে পরাজিত করে ঠিকই বিজয় চিনিয়ে নেন শাহিন আক্তার। এবারও নৌকার মনোনয়ন পেয়েছেন তিনিই।

উখিয়া উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নে ভোটারদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, এবার সংসদ সদস্য পদে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হতে পারে। এবার আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী শাহীন আক্তারের সঙ্গে স্বতন্ত্রপ্রার্থী নুরুল বশরের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। তারা দুজনই হেভিওয়েট প্রার্থী। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে বলে আশাবাদী ভোটাররা।